Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
ধারণার চেয়ে বেশি শক্তি নিসর্গের, গতি ১৪০ কিমি

ধারণার চেয়ে বেশি শক্তি নিসর্গের, গতি ১৪০ কিমি

নিউজ ডেক্স // পূর্বাভাসের চেয়েও বেশি শক্তি নিয়ে ভারতে আছড়ে পড়েছে নিসর্গ। ইতোমধ্যেই মহারাষ্ট্রে আলিবাগের দক্ষিণে মুরুদ এবং রেভদান্দার মাঝামাঝি স্থলভূমিতে আঘাত হানছে প্রবল ঘূর্ণিঝড়টি।ভারতের আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, স্থানীয় সময় বুধবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে স্থলভূমিতে প্রবেশ করেছে নিসর্গ। তবে পূর্বাভাসের চেয়েও এতে বাতাসের গতিবেগ অনেক বেশি। ঘণ্টায় ১২০ থেকে ১৪০ কিলোমিটার বেগে বয়ে যাচ্ছে এ ঝড়।
সমুদ্রে থাকার সময়ে ঘূর্ণিঝড়টি প্রায় ৫০০ কিলোমিটার জায়গা জুড়ে বইছিল। সেসময় এর গতি ছিল ঘণ্টায় ১১০ থেকে ১২০ কিলোমিটার।
ভারতীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, রায়গড়সহ মহারাষ্ট্র উপকূলের ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ। এরপর তা পর্যায়ক্রমে মুম্বাই ও থানে জেলায় প্রবেশ করবে। স্থলভূমিতে প্রবেশের এ প্রক্রিয়া শেষ হতে প্রায় তিন ঘণ্টা সময় লাগবে।
ঝড়ে ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় ইতোমধ্যেই ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে মহারাষ্ট্র ও গুজরাট প্রশাসন। দুই রাজ্যের উপকূলীয় এলাকা থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বহু মানুষকে। বেশ কিছু হাসপাতাল থেকে করোনা রোগীদেরও সরিয়ে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।
বুধবার বিকেলে চার মাত্রায় পরিণত হলে ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে আলিবাগে ভূমিধসের ঘটনা ঘটতে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে। এছাড়া ঝড়ের প্রভাবে প্রবল বৃষ্টিপাত ও ছয় ফুট উঁচু জলোচ্ছাসেরও আশঙ্কা করা হচ্ছে।
মুম্বাই পুলিশ মঙ্গলবার রাতে নির্দেশিকা জারি করে জানিয়েছে, উপকূল বরাবর যাতায়াত সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মহারাষ্ট্র ও গুজরাটে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর মোট ৩০টি দল নামানো হয়েছে। একেকটি দলে রয়েছেন ৪৫ জন কর্মী। উপকূল এলাকা থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার পর কেউ যেন সমুদ্রের কাছে না যেতে পারে সেজন্য টহল দেওয়া হচ্ছে।
ঘূর্ণিঝড়ের কারণে বুধবার বেশিরভাগ ফ্লাইট বাতিল করেছে মুম্বাই বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।
করোনাভাইরাসের প্রকোপে এমনিতেই বিপর্যস্ত মহারাষ্ট্র। রাজ্যটিতে ৭০ হাজারেরও বেশি মানুষ প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, প্রতিদিনই বাড়ছে এই সংখ্যা। তার ওপর নতুন বিপদ নিয়ে এসেছে ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *