Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
ধামরাইয়ে চাকরি দেয়ার নামে কোটি টাকা আত্মসাৎ, গ্রেপ্তার ২

ধামরাইয়ে চাকরি দেয়ার নামে কোটি টাকা আত্মসাৎ, গ্রেপ্তার ২

বার্তা পরিবেশক // সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে বেকার যুবকদরে কাছ থেকে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দুই যুবক। এরা হলো- ধামরাই উপজেলা সমাজ সেবা অফিসের ঠকর্মী জাহাঙ্গীর আলম এবং যাদবপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আলাল দেয়ানের ছেলে আপন হোসেন। এ ঘটনায় তাদের দু’জনকে  গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

জানা গেছে, জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা (এন.এস.আই), সমাজ সেবা, পুলিশ, এয়ারপোর্টসহ বিভিন্ন দপ্তরে চাকরি দেয়ার কথা বলে ধামরাইয়ের বাস্তা নয়াচর গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের ছেলে সজিব হাসানের কাছ থেকে ১১ লাখ, সমাজ সেবা অধিদপ্তরে মাঠ সুপারভাইজার পদে চাকরি দেয়ার কথা বলে বালিয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসান হিটলুর ছেলে মাকদুদুল আলম খানের কাছ থেকে ১১ লাখ, গণকপাড়ার আবদুর রহমানের ছেলে রুবেল হোসেনের কাছ থেকে ১২ লাখ টাকাসহ বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নেন তারা। চাকরি দিতে না পারায় ভুক্তভোগীরা টাকা ফেরত চাইলে তাদের নানা হুমকি দেন প্রতারক চক্র। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী রুবেল হোসেন মামলা দায়ের করলে গত বুধবার রাতে ধামরাই উপজেলা সমাজসেবা অফিসের মাঠকর্মী জাহাঙ্গীর আলম ও যাদবপুর গ্রামের আপন হোসেনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
প্রতারণার শিকার সজিব হাসান জানান, তাকে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার ওয়াচার কনস্টেবল পদে চাকরি দেয়ার কথা বলে ১১ লাখ টাকা নেন জাহাঙ্গীর আলম। রিটেন ও ভাইবা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলাম কিন্তু চাকরি হয়নি।

গত দুই বছর ধরে টাকাও ফেরত দিচ্ছে না।
রুবেল হোসেন জানান, তাকে এয়ারপোর্ট ইনচার্জ পদে চাকরি দেয়ার কথা বলে জাহাঙ্গীর আলম ও আপন হোসেন মিলে ১২ লাখ টাকা নিয়েছে প্রায় দুই বছর আগে। কিন্তু তারা চাকরি দিতে পারেনি টাকাও ফেরত দিচ্ছে না। তাই মামলা করেছি।
সুয়াপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান সোহরাব জানান, জাহাঙ্গীর আলম সরকারি চাকরি দেয়ার নামে বহু লোকের নিকট থেকে টাকা নিয়েছে। যারা এখন প্রায় নিঃস্ব।  
স্থানীয়রা জানান, আপন আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে বলে তাকে কেউ কিছু বলে না। কিন্তু ধামরাই থানা পুলিশ তাকে ছাড়েনি। নেতার ছেলেকেও গ্রেপ্তার করেছেন।  
ধামরাই থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহা জানান, সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে  চাকরি দেয়ার কথা বলে অনেকের কাছ থেকে জাহাঙ্গীর আলম ও আপন হোসেনসহ একটি চক্র বিপুল পরিমান টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের সাতদিনের রিমাণ্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *