Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
শেবাচিম চিকিৎসকের উপর হামলার মিশন সাকসেসফুল, হামলাকারীদের পুরস্কৃত করলেন পরিচালক।

শেবাচিম চিকিৎসকের উপর হামলার মিশন সাকসেসফুল, হামলাকারীদের পুরস্কৃত করলেন পরিচালক।

বিশেষ প্রতিনিধি ।। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন ‍ইউনিট-৪ ‍এর সহকারী রেজিষ্টার ডাঃ মাসুদ খানের উপর হামলার ক্ষত শুকাতে না শুকাতেই ইন্টার্ন ডক্টরস এসোসিয়েশন (আইডিএ) কমিটি ঘোষনা করে হামলাকারীদের পুরস্কৃত করলেন শেবাচিম পরিচালক ডাঃ মোঃ বাকির হোসেন।

ইন্টার্ন ডক্টরস এসোসিয়েশন (আইডিএ) এর নিজস্ব প্যাডে পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন নিজ হাতে “অনুমোদিত” লিখে স্বাক্ষরসহ বিজ্ঞপ্তি আকারে আইডিএ কমিটি ঘোষনা করেন গত বৃহসপ্রতিবার (২২-১০-২০২০ইং)। উক্ত কমিটিতে শেবাচিম র্কতব্যরত চিকিৎসকের উপর হামলার প্রধান অভিযুক্ত সজল পান্ডে’কে সভাপতি ও মোঃ তরিকুল ইসলাম কে সাধারন সম্পাদক পদে অনুমোদন দেন । অথচ ওই চিকিৎসক পরিচালক বরাবর তার উপর হামলার যে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন, সেখানে সজল পান্ডে ও মোঃ তরিকুল ইসলাম কে প্রধান হামলাকারী হিসেবে উল্লেখ করেছেন। যেখানে পরিচালক আক্রান্ত চিকিসক কে নিরাপত্তা দিবেন এবং তার পক্ষে থানায় মামলা দায়ের করবেন, সেখানে উল্টো হামলাকারীদের আইডিএ এর সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক পদে নাম ঘোষনা করে আরো উৎসাহিত করেন। উক্ত কমিটি ঘোষনার পর ডাঃ মাসুদ খানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি  জানান,”আমি নিরাপত্তাহীনবোধ করছি এবং বিভিন্ন মাধ্যম থেকে প্রান নাশের হুমকি পেয়ে আসছি“ ।

হাসপাতালের চিকিতসা সেবা ও পরিক্ষা নিরীক্ষা ২৪ ঘন্টা চালু রাখা সহ সকল ধরনের সেবা যাতে দূর দুরান্ত থেকে আসা রোগীরা সহজেই হাসপাতালেই পেতে পারেন তার জন্য কাজ করে আসছিলেন এই চিকিৎসক । সম্প্রতি হাসপাতালের প্যাথলজি, সিটি স্ক্যান, ইকোকার্ডিওগ্রাফী ও আল্ট্রাসনোগ্রাফী সহ সকল মুমূর্ষ রোগীর প্রয়োজনীয় পরিক্ষা-নীরিক্ষা হাসপাতালে যাতে ২৪ ঘন্টা চালু থাকে, সেজন্য তিনি বিভিন্ন ভাবে সচেষ্ট ছিলেন। তার এই রোগী বান্ধব কর্মকান্ডে হাসপাতালের মধ্যেই কারো কারো চক্ষুশূলে পরিনত হন তিনি ।

উল্লেখ্য যে, গত ২০/১০/২০২০ ইং তারিখ রোজ মঙ্গলবার নিজ কর্মস্থলে মুমূর্ষ রোগীকে সেবা প্রদানকালে সজল পান্ডে ও মোঃ তরিকুল ইসলাম এর নেতৃত্বে ৫ম বর্ষের শিক্ষার্থী অভি সহ ৮-১০ জন বহিরাগত শিক্ষার্থীর বর্বরোচিত হামলার শিকার হন ওই চিকিৎসক  এবং ২২/১০/২০২০ ইং তারিখে আইডিএ কমিটি ঘোষনা করেন শেবাচিমের পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন।

এ বিষয়ে বরিশাল শেবাচিমের পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন একাধিকবার ফোন করা হলেও সে ফোন রিসিভ করেনি।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *