Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
প্রচারণায় মরিয়া ট্রাম্প, বাইডেন

প্রচারণায় মরিয়া ট্রাম্প, বাইডেন

বাংলাদেশ ক্রাইম // জরিপের ফলকে মিথ্যা প্রমাণ করে বিস্ময়কর বিজয় চান যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। নাটকীয়তায় নির্বাচনে জয়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করে রোববার দু’দিনের ঝটিকা প্রচারণায় ব্যস্ত তিনি। চষে বেড়াচ্ছেন ব্যাটলগ্রাউন্ড স্টেটগুলো। দৃশ্যত পুনরায় তার নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ ক্রমশ সংকীর্ণ হয়ে আসছে বলে মনে হচ্ছে। তাই তিনি সব হিসাব নিকাশকে থামিয়ে দিয়ে ফিরতে চান হোয়াইট হাউজে। যদি তাতে জয়ী হন তাহলে আরও চার বছরের জন্য তার হাতে উঠবে হোয়াইট হাউজের চাবি। আর যদি ব্যর্থ হন তাহলে জর্জ এইচডব্লিউ বুশের সময় থেকে এ পর্যন্ত তিনি হবেন প্রথম প্রেসিডেন্ট, যিনি দ্বিতীয় মেয়াদে ব্যর্থ হয়েছেন। অন্যদিকে করোনা ভাইরাস মোকাবিলা নিয়ে ট্রাম্পের অবস্থানকে নির্বাচনে কেন্দ্রীয় থিম হিসেবে প্রচারণায় ব্যস্ত ডেমোক্রেট দল থেকে প্রার্থী জো বাইডেন।

তিনি রোববার প্রচারণায় ব্যস্ত থাকছেন পেনসিলভ্যানিয়াতে। এটি এমন এক রাজ্য যা-  কে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন তা নির্ধারণ করে থাকে। তাই এ রাজ্যের ওপর জোর দিয়েছে জো বাইডেন। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।
রোববার ও সোমবার ১০টি র‌্যালিতে অংশ নিচ্ছেন ট্রাম্প। দিনে তিনি পাঁচটি র‌্যালিতে অংশ নিচ্ছেন। আগামী মঙ্গলবার নির্বাচন। সেদিন সমর্থকদের ঘর থেকে বের করে আনতে যতটা সম্ভব প্রভাবিত করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন তিনি। রোববার তার র‌্যালি করার কথা মিশিগান, আইওয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা, জর্জিয়া ও ফ্লোরিডায়। সোমবার প্রচারণা চালানোর কথা নর্থ ক্যারোলাইনা, পেনসিলভ্যানিয়া, উইসকনসিন এবং মিশিগানে। সোমবার রাতের শেষ ভাগে মিশিগানে গ্রান্ড র‌্যাপিডসে তার প্রচারণা শেষ হওয়ার কথা। এখানেই তিনি ২০১৬ সালের নির্বাচনী প্রচারণার সমাপ্তি ঘোষণা করেছিলেন। চার বছর আগে অসম্ভাব্য বিজয়ে তিনি মিশিগান, পেনসিলভ্যানিয়া, উইসকনসিন রাজ্যে জয় পেয়েছিলেন। এই তিনটি রাজ্য কয়েক দশক ধরে ছিল ডেমোক্রেটদের ঘাঁটি।
ওদিকে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা কমপক্ষে ৯০ লাখ। মারা গেছেন প্রায় দুই লাখ ৩০ হাজার মানুষ। কিন্তু করোনা ভাইরাসের বিষয়টিকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প গুরুত্বই দেননি। তার অভিযোগ তার বিরোধীরা এই ইস্যুকে তার পিছনে ব্যবহার করছে। তিনি সতর্ক করছেন এই বলে যে, যদি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন বাইডেন, তাহলে যুক্তরাষ্ট্রকে আবারো লকডাউনে পড়তে হবে। কিন্তু আরেকটি লকডাউন সহ্য করার সক্ষমতা নেই যুক্তরাষ্ট্রের। তিনি পেনসিলভ্যানিয়ার নিউটাউনে নির্বাচনী এক সভায় জনমত জরিপে বাইডেন তার কাছাকাছি থাকায় একরকম হতাশা প্রকাশ করেছেন। কারণ, বাইডেনকে তিনি অনেক দুর্বল প্রতিপক্ষ হিসেবে দেখে থাকেন। ট্রাম্প বলেন, এটা তো শুধু আমার ক্ষেত্রে ঘটবে। কিভাবে আমাদের দু’জনের টাই হতে পারে?
উল্লেখ্য জাতীয় পর্যায়ের জরিপে জো বাইডেন বেশ ভালভাবে এগিয়ে আছেন ট্রাম্পের চেয়ে। কিন্তু সুইংস্টেটগুলোতে তারা কাছাকাছি অবস্থানে রয়েছেন। তা সত্ত্বেও বিভিন্ন বিশ্লেষণে বলা হচ্ছে, যদি ট্রাম্প আবার বিজয়ী হতে চান তাহলে তাকে ২০১৬ সালের মতো ফ্লোরিডা, জর্জিয়া, নর্থ ক্যারোলাইনা, ওহাইও, আইওয়া এবং অ্যারিজোনার মতো রাজ্যগুলোতে জিতে আসতে হবে। তাকে জিততে হবে কমপক্ষে পেনসিলভ্যানিয়া, মিশিগান অথবা উইসকনসিনের মতো রাজ্যে। তিনি যে বিজয়ী হবেন এ বিষয়ে কিছু রিপাবলিকান আশাবাদী। তবে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে, যে ৯ কোটি মানুষ আগাম ভোট দিয়েছেন তারা হয়তো ট্রাম্পের বিরুদ্ধে রায় দিয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *