Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
দ্বিগুণ গতিতে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

দ্বিগুণ গতিতে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

বাংলাদেশ ক্রাইম // রাজধানীর হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। গত সপ্তাহের তুলনায় দ্বিগুণের বেশি রোগী ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। ডেঙ্গুর মৌসুম শেষ হয়ে গেলেও চলতি মাসের ১৩ দিনেই আক্রান্ত হয়েছেন ১৯৮ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, গত ১ নভেম্বর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৫ জন, ২ নভেম্বর ঢাকার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আটজন, ঢাকার বাইরে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন দুজন, ৩ নভেম্বর ঢাকার হাসপাতালে ১৩ জন, বাইরে একজন, ৪ নভেম্বর নয়জন, ৫ নভেম্বর ১০ জন, ৬ নভেম্বর ১২ জন, ৭ নভেম্বর ১৫ জন, ৮ নভেম্বর ঢাকার হাসপাতালে ২৩ জন, বাইরে একজন, ৯ নভেম্বর ঢাকায় ৫ জন, বাইরে একজন, ১০ নভেম্বর ঢাকায় ১৯ জন, বাইরে ছয়জন, ১১ নভেম্বর ২৫ জন, ১২ নভেম্বর ১৯ জন এবং গতকাল ঢাকার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৩ জন এবং একজন ঢাকার বাইরে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। গতকাল ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে একজন, ধানমন্ডি ইবনে সিনা হাসপাতালে চারজন, সেন্ট্রাল হাসপাতালে দুজন, কাকরাইল ইসলামী ব্যাংক সেন্ট্রাল হাসপাতালে দুজন, এভার কেয়ার হাসপাতালে দুজন, ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুজন। বর্তমানে ডেঙ্গু জ্বর নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৮৯ জন। গত সপ্তাহে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছিলেন ৭০ জন। সাত দিনে আক্রান্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯৮ জনে। চলতি বছর ডেঙ্গু সন্দেহে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এসব মৃত্যুর তথ্য পর্যালোচনার জন্য সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) পাঠানো হয়েছে। আইইডিসিআর এখন পর্যন্ত দুটি মৃত্যুর তথ্য পর্যালোচনা করে একজনের ডেঙ্গুতে মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে। এ বছরের জানুয়ারিতে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন ১৯৯ জন, ফেব্রুয়ারিতে ৪৫ জন, মার্চে ২৭ জন, এপ্রিলে ২৫ জন, মে মাসে ১০ জন, জুনে ২০ জন, জুলাইতে ২৩ জন, আগস্টে ৬৮ জন, সেপ্টেম্বরে ৪৭ জন, অক্টোবরে ১৬৩ জন, নভেম্বরে ১৩ দিনেই ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন ১৯৮ জন। গত বছর ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা এর আগের সব বছরের রেকর্ড ছাড়িয়েছিল। স্বাস্থ্য অধিদফতরের হিসাবে, ২০১৯ সালে সারা দেশে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন ১ লাখ ১ হাজার ৩৫৪ জন। সরকারি হিসাবে ডেঙ্গু জ্বরে মারা গেছেন ১৭৯ জন। ডেঙ্গু ভাইরাসবাহী এডিস মশার কামড়ে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয় মানুষ। ডেঙ্গু ভাইরাসবাহী এডিস মশার কামড়ে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয় মানুষ। তাই এডিস মশার বংশবিস্তার রোধে ১০ দিনের চিরুনি অভিযান শুরু করেছিল ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। ডিএনসিসি এলাকায় একযোগে চলমান এই অভিযানে প্রতিদিনই প্রায় অর্ধশতাধিক বাড়ি ও স্থাপনায় মিলেছে এডিসের লার্ভা। এ ছাড়া এডিস মশা বংশবিস্তার করতে পারে এমন উপযুক্ত পরিবেশ ধ্বংস করা হয়েছে। এ ব্যাপারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও ভাইরোলজিস্ট অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘অক্টোবরের শেষ সপ্তাহ থেকে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। সিটি করপোরেশন মশক নিধনে অভিযানে নেমেছে। নাগরিকদেরও সচেতন থাকতে হবে। নিজের বাসার ভিতরে এবং চারপাশে কোনো পাত্রে পানি জমে থাকলে তা ফেলে দিতে হবে। রোগী বাড়ার আগেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে।’

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *