Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
ক্ষতিগ্রস্ত অত্যাধুনিক যুদ্ধজাহাজটি মেরামত করবে মার্কিন নৌবাহিনী

ক্ষতিগ্রস্ত অত্যাধুনিক যুদ্ধজাহাজটি মেরামত করবে মার্কিন নৌবাহিনী

বাংলাদেশ ক্রাইম // ক্যালিফোর্নিয়ার সান দিয়েগো বন্দরে গত জুলাইয়ে আগুনে বিধ্বস্ত হয় মার্কিন যুদ্ধ জাহাজ ইউএসএস বনহোম রিচার্ড। ৪৪ হাজার টন ওজনের উভচর ধরনের এ জাহাজটি মেরামত করে সমুদ্র যাত্রার জন্য প্রস্তুত করতে যাচ্ছে মার্কিন নৌবাহিনী। তবে এর জন্য খরচ পড়বে বিলিয়ন ডলার।

দেশটির নৌকর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদ মাধ্যম সিএনএন’র প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘জাহাজটির ৬০ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তা মেরামত করে পুনরায় সমুদ্র যাত্রার জন্য প্রস্তুত করতে খরচ পড়বে ২.৫ থেকে ৩.২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর তা করতে সময় লাগবে পাঁচ থেকে সাত বছর।’

নৌবাহিনীর সেক্রেটারি কেনেথ ব্রেথওয়েট এক বিবৃতিতে জানান, ক্ষতিগ্রস্ত যুদ্ধজাহাজটির ব্যাপারে ব্যাপক পর্যালোচনা করা হয়েছে। আর সেটি কেবল একটি অর্থবছরে পুনরুদ্ধার করা সম্ভব নয়।

যুদ্ধজাহাজটি মেরামতের করে তা অন্য জাহাজে রূপান্তরের চিন্তাও করে দেশটির নৌবাহিনী। তবে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, জাহাজটি যদি হাসপাতাল জাহাজেও রূপান্তর করা হয় তারপরও খরচ পড়বে এক বিলিয়ন ডলারের বেশি। যা অনুরূপ একটি জাহাজ তৈরির খরচের চেয়েও বেশি।

নৌবাহিনীর আঞ্চলিক রক্ষণাবেক্ষণ কেন্দ্রের কমান্ডার রিয়ার অ্যাডমিরাল এরিক ভের হেগ সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, জাহাজটি প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রগুলো মেরামতের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে অত্যাধুনিক ওই যুদ্ধজাহাজে আগুনের ঘটনা ছিল ভয়ঙ্কর। গত ১২ জুলাই সান দিয়েগো বন্দরে মার্কিন বাহিনীর একটি ছোট জাহাজে বিস্ফোরণ থেকে আগুন ধরে যায়। সেখান থেকে দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ে মার্কিন বাহিনীর দ্বিতীয় বৃহত্তম বিমানবাহী রণতরি ইউএসএস বনহোম রিচার্ডে। কিন্তু আদতে ছোট জাহাজ থেকেই অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত কি না, সে সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তদন্ত করে দেখছে মার্কিন নৌসেনা।

১৯৯৮ সালে মার্কিন নৌবাহিনীর প্রশান্ত মহাসাগরীয় নৌবহরে যুক্ত হয় ইউএসএস বনহোম রিচার্ড। মার্কিন মেরিন কোরের সমর হেলিকপ্টার ও স্থল সৈন্যদের যুদ্ধক্ষেত্রে বহন করে নিয়ে যাওয়ার জন্য এই জাহাজটি তৈরি করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *