Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
আলোচিত বক্তা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা

আলোচিত বক্তা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা

বাংলাদেশ ক্রাইম // খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ও হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। প্রশাসনের অনুমতি ছাড়াই গোপনে মাহফিলে বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে এ মামলাটি করে পুলিশ।

এ মামলায় মামুনুলসহ মোট ছয় জনকে আসামি করা হয়েছে।

ঘটনার নেপথ্যে জানা গেছে, গত ১৭ ডিসেম্বর কুমিল্লার চান্দিনা থানায় এ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলাটি করা হয়। তবে আজ রোববার সকালে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ১৫ ডিসেম্বর চান্দিনা থানার জোয়াগ পশ্চিমপাড়া এলাকায় দুই দিনব্যাপী ইসলামী মহাসম্মেলনের আয়োজন করা হয়। মাহফিলের দ্বিতীয় দিনে মামুনুল হকের যাওয়ার বিষয়টি পরিকল্পিতভাবে গোপন রাখেন আয়োজকরা।

এ বিষয়ে চান্দিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সামছুদ্দিন মোহাম্মদ ইলিয়াস জানান, করোনা মহামারির কারণে গণজমায়েত নিষিদ্ধ করেছে সরকার। তার মধ্যে প্রশাসনের কাছে তথ্য পোপন করে মাহফিলের আয়োজন করেছেন অভিযুক্তরা। এছাড়া ওই মাহফিলে পোস্টার ও ব্যানারে মামুনুল হকের নাম ছিল না। কিন্তু আয়োজকদের যোগসাজশে মাহফিলে এসে মামুনুল রাষ্ট্রবিরোধী অপপ্রচার, উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন।

এ কারণে মাহফিলের আয়োজক মোশাররফ হোসেন মাহমুদকে এক নম্বর ও হেফাজত নেতা মামুনুল হককে দুই নম্বর আসামি করে মামলা করা হয়েছে।

এর আগে, শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে মামুনুলের বক্তব্য দেয়ার বিষয়টি প্রথম জানান বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মিছবাহুর রহমান চৌধুরী।

কুমিল্লার ওই মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে গিয়েছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন, রাত ১১টার দিকে বক্তব্য শেষে তিনি ঢাকায় রওনা হন। পৌঁছানোর পর জানতে পারেন, সম্মেলনের শেষ দিকে মামুনুলও সেখানে গিয়েছিলেন; বক্তৃতাও দেন।

এদিকে প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কীভাবে বিতর্কিত এ মাওলানা ওয়াজ মাহফিলে গেলেন, বক্তব্য দিলেন তা নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যাপক সমালোচনা।

বিষয়টি নিয়ে চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিভীষণ কান্তি দাশ বলেন, আয়োজকরা মামুনুল হকের যাওয়ার বিষয়টি গোপন রাখেন। বিষয়টি এখন খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *