Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
ধামরাইয়ে নির্বাচনীয় পরবর্তী সহিংসতা ব্যাপক সংঘর্ষ

ধামরাইয়ে নির্বাচনীয় পরবর্তী সহিংসতা ব্যাপক সংঘর্ষ

বাংলাদেশ ক্রাইম // ঢাকার ধামরাই পৌরসভা নির্বাচনে পরবর্তী ব্যাপক সহিংসতা দেখা দিয়েছে। দুটি ওয়ার্ডে হামলা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছে প্রায় ৩০ জন। উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে ওই এলাকায়। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

 

জানা গেছে. ধামরাইয়ে গত ২৮ ডিসেম্বর পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সকল ওয়ার্ডেই সুন্দরভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণার পরই চরম উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়।

চলছে বিক্ষোভ মিছিল। গত দুদিন ধরেই ওই এলাকায় চরম থম থম অবস্থা বিরাজ করে। মঙ্গলবার রাতে ৯ নং ওয়ার্ডে বিজয়ী পৌর কাউন্সিলর আবু সাইদ ও প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থী আরফান আলীর লোকজনদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় কয়েকটি বাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এতে উভয় পক্ষের সোহেল রানা, আমিনুর, পারভেজ, ছানোয়ার, রেজাউল, রুবি বেগমসহ কমপক্ষে ২৫ জন আহত হন।

 

আহতদের মধ্যে সোহেল রানার একটি পা ভেঙে গেছে ও তার মাথায় কুপ রয়েছে। বর্তমানে তিনি সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। এদিকে ৮নং ওয়ার্ডে ফল পাল্টানোর অভিযোগ এনে জাহাঙ্গীর আলম বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই এলাকায় ব্যাপক সংঘর্ষ চলে। এতে উভয় পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হলে উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হেমায়েত কবির মতিন, মুক্তিযোদ্ধা আওয়ালাদ হোসেনসহ ৫ জন আহত হন।

আহত রেজাউল করিম জানান, কি কারণ তাদের মারধর করা হয়েছে তা এখনো তারা সঠিক জানে না। তবে তাদের বাড়িতে তাণ্ডব লীলা চালানো হয়েছে বলে জানান তারা।

এ সময় প্রার্থী আরফান উদ্দিন জানান, আমার নির্বাচন করায় ক্ষিপ্ত হয়ে আবু সাইদের নির্দেশে তাদের লোকজন আমার লোকের উপর হামলা ও ভাঙচুর করেছেন।

এ ঘটনায় ধামরাই থানায় কয়েকটি অভিযোগ দেয়া হয়েছে। তবে কাউন্সিলর আবু সাইদ হামলার কথা অস্বীকার করে ধামরাই প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে বলেন, আমার সাথে ভোটে হেরে গিয়ে আরফান আলীর লোকজনই আমার লোকের উপর হামলা করেছেন। কয়েকজন গুরুতর আহত হয়ে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছেন বলে জানান তিনি।

ধামরাই থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহা জানান, হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি। দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। আর ওই দুই ওয়ার্ডে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *