Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
মর্যাদার লড়াইয়ে আ.লীগ-বিএনপি

মর্যাদার লড়াইয়ে আ.লীগ-বিএনপি

বাংলাদেশ ক্রাইম // সুনামগঞ্জের ছাতক পৌরসভার মেয়র পদে নির্বাচনকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মর্যাদার লড়াই হিসেবে দেখা হচ্ছে। এরই মধ্যে এ লড়াই উৎসবে পরিণত হয়েছে। পৌরসভার সর্বত্রই নির্বাচনী উত্তাপ। প্রার্থীরা বিজয়ের লক্ষ্যে পরিবর্তন করছেন প্রচারের কৌশল। মেয়র পদে বড় দুই দলের দুই প্রার্থী হওয়ায় ভোটাররা প্রতিনিধি বাছাইয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণে মেতে উঠেছেন।

১৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী এবং বিএনপির প্রার্থী সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রাশিদা আহমদ ন্যান্সির মধ্যে জমজমাট ভোটযুদ্ধের প্রত্যাশা করছেন পৌরবাসী। দলীয় মতবিরোধ না থাকায় অনেকটা সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন রাশিদা আহমদ ন্যান্সি। অন্যদিকে দলীয় কোন্দলে আওয়ামী লীগের এমপির সমর্থকরা নীরব থাকায় কিছুটা বেকায়দায় আবুল কালাম চৌধুরী।

১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত ছাতক পৌরসভা ইতোমধ্যে ৪টি নির্বাচনী কাল পার করেছে। এবার পঞ্চমবার নির্বাচন হচ্ছে। ১৯৯৯ সালে প্রথম নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ আব্দুল ওয়াহিদ মজনু। পরবর্তীতে ২০০৫, ২০১১ ও ২০১৫ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবুল কালাম চৌধুরী টানা জয়লাভ করেন। ফলে ছাতক পৌর এলাকাকে আওয়ামী লীগের দুর্গ হিসেবে অনেকে মনে করেন।

এ পৌরসভায় সর্বশেষ নির্বাচন হয়েছিল ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। এ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে ১০ হাজার ৮২৬ ভোট পেয়ে হ্যাটট্রিক বিজয় লাভ করেন আবুল কালাম চৌধুরী। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আলহাজ আব্দুল ওয়াহিদ মজনু পান ৪ হাজার ৬৫১ ভোট এবং শীষ প্রতীক নিয়ে ৩ হাজার ৩৫০ ভোট পেয়ে তৃতীয় অবস্থানে ছিলেন বিএনপির প্রার্থী শামছুর রহমান শামছু। অবশ্য বিগত পৌর নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর পরাজয়ের কারণ হিসেবে দলীয় কোন্দলকেই দায়ী করেন নেতাকর্মীরা।

বর্তমানে দলের উভয় বলয়ের সিনিয়র নেতাকর্মীদের মতামতের ভিত্তিতেই রাশীদা আহমদ ন্যান্সিকে প্রার্থী করেছে বিএনপি। যে কারণে আগামী ১৬ জানুয়ারির নির্বাচনে বিজয় নিশ্চিত করতে বিএনপির উভয় বলয়ের নেতাকর্মীরা ভোটের মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। ন্যান্সির পক্ষে মাঠে রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক এমপি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মিজানুর রহমানসহ জেলা-উপজেলার বিএনপি নেতারা।

অন্যদিকে মেয়র পদ ধরে রাখতে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন আবুল কালাম চৌধুরী ও তার কর্মী-সমর্থকরা। এ উপজেলায় মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী ও সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ দুটি বলয়ে বিভক্ত। ফলে এমপি বলয়ের কোনো নেতাকর্মীকে এখনো নির্বাচনী মাঠে দেখা যায়নি। তবে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ নূরুল হুদা মুকুটসহ নেতারা নৌকার পক্ষে মাঠে আছেন।

বিগত নির্বাচনগুলোতেও আওয়ামী লীগের একটি বলয়কে দলীয় প্রার্থীকে অসহযোগিতা করতে দেখা গেছে। বিএনপি প্রার্থী রাশিদা আহমদ ন্যান্সি জানান, জনবিচ্ছিন্ন নয়, জনবান্ধব মেয়র হতে তিনি প্রার্থী হয়েছেন। পৌরবাসীর মৌলিক অধিকার বাস্তবায়নে ধানের শীষে ভোট প্রার্থনা করেন তিনি।

পৌরসভায় ১৫ বছরের উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরে আবুল কালাম চৌধুরী জানান, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশজুড়ে চলছে উন্নয়নের মহোৎসব। তার প্রাণপ্রিয় ছাতক পৌরসভায়ও উন্নয়নের মহোৎসব চলমান।

এ ছাড়া পৌর এলাকাকে তিলোত্তমা শহরে পরিণত করতে ব্যাপক উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। চলমান কাজ ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে ছাতক পৌরসভা একটি আধুনিক মডেল পৌরসভা হিসেবে রূপ নেবে। অসমাপ্ত ও পরিকল্পিত উন্নয়ন কর্মকা- বাস্তবায়নে এবং উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে ১৬ জানুয়ারি নৌকায় ভোট চাচ্ছেন তিনি।

ছাতক পৌরসভায় ১৯টি কেন্দ্রে ৩০ হাজার ২৮০ জন ভোটার। তাদের মধ্যে পুরুষ ১৫ হাজার ২৭১ ও নারী ১৫ হাজার ৯ জন।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *