Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
News Headline :
পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির ২৪ বছর পূর্তি উপলক্ষে বরিশাল ১০নং ওয়ার্ড আ’লীগের আনন্দ র‌্যালি বরিশালে চাকরি প্রার্থীদের অর্ধকোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা আরএম গ্রুপ কুয়াকাটা সৈকতে রাতের আকাশে ফানুসের মেলা কাউন্সিলর হত্যা মামলার প্রধান আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত পটুয়াখালীতে ১৪ মণ জাটকা জব্দ, তিন ব্যবসায়ীকে জরিমানা গভীর রাতে সাজেকে ৪ রিসোর্ট পুড়ে ছাই, সাড়ে ৩ কোটি টাকার ক্ষতি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে রেকর্ড সংখ্যক ভর্তির আবেদন বরিশালে পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২যুগ পূর্তি উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পূস্পার্ঘ অপর্ণ যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সদাপ্রস্তুত : প্রধানমন্ত্রী এবার বৃদ্ধাকে ধাক্কা দিলো সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ি
লকডাউনে কিস্তি আদায়ে ব্যস্ত এনজিও কর্মীরা, বিপাকে ঋণগ্রহীতারা

লকডাউনে কিস্তি আদায়ে ব্যস্ত এনজিও কর্মীরা, বিপাকে ঋণগ্রহীতারা

বাংলাদেশ ক্রাইম // চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় বিভিন্ন এনজিওকমীরা লকডাউনের মধ্যে সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে কিস্তি আ’দায়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। ফলে বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের ঋণগ্রহীতারা। ঋণের কিস্তি দিতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা। ছোটখাটো বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা ঋণ নিয়ে তাদের ব্যবসার কার্যক্রম চালান।

এ ছাড়াও অনেকে এনজিও থেকে সা’প্ত াহিক কিস্তিতে ঋণ নিয়ে ইজিবাইক, থ্রিহুইলার, ভ্যান,পাখিভ্যান, আলমসাধুসহ বিভিন্ন যানবাহন কিনে চালিয়ে তা থেকে আয় করে জী’বিকা নির্বাহ করেন ও ঋণের কিস্তি দেন।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর থেকে ধীরে ধীরে মৃ’তু ও আ’ক্রা’ন্তের হার বাড়তে থাকায় সরকার দেশজুড়ে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে। ফলে সরকারি-বেসরকারি অফিস-আ’দালত
ব্যবসা’প্রতিষ্ঠান শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

ফলে আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে যায় অনেক মানুষের। এমন পরিস্থিতিতে এনজিওর ঋণের কিস্তি দিতে হিমশিম খাচ্ছেন নিম্ন আয়ের ঋণগ্রহীতারা।

অধিকাংশ এনজিও বিবাহিত নারীদের সমিতির মাধ্যমে ঋণ দিয়ে থাকে। এমন সময়ে এ সকল ভুক্তভোগী খেটেখাওয়া ঋণগ্রহীতা যখন তাদের সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন। এর মধ্যে বিভিন্ন এনজিওকর্মীরা বাড়ি বাড়ি কিস্তি আ’দায়ের জন্য ধরনা দিচ্ছেন, চাপ সৃ’ষ্টি করে কিস্তি আ’দায় করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচলের সরকারি নির্দেশনা থাকলেও এনজিওকর্মীরা ঋণগ্রহীতাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কিস্তির টাকা আ’দায় করছেন। কোনো কোনো এনজিওরকর্মী এক বাড়িতে টেবিল চেয়ার নিয়ে বসে পাড়ার সব নারী ঋণগ্রহীতাদের নিকট থেকে কিস্তি আ’দায় করছেন। এ সময় নারী গ্রহীতাদের মাঝে মাস্ক ব্যবহার বা সামাজিক দূরত্ব মানার কোনো বালাই থাকছে না।

দামুড়হুদা বাজারের রাসেল ইলেট্রনিক ব্যবসায়ী পুরাতন হাউলি গ্রামের আবু রাসেল বলেন, ব্যুরো বাংলাদেশ নামে এনজিও থেকে তার স্ত্রীর নামে ২০ হাজার টাকা সা’প্ত াহিক কিস্তিতে ঋণ নিয়ে ব্যবসার কাজে লাগানো হয়। লকডাউন হয়ে যাওয়ায় ব্যবসা’প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হচ্ছে। ফলে সংসার চালানো দায় হয়ে পড়েছে।

এর মধ্যে স’প্ত াহ শেষে সাড়ে ৫ শ টাকা কিস্তি দিতে হবে। এনজিওর লোকেরা কিস্তি নিতে বাড়ি এসে বসে থাকছে। দিতে না পারলে নানাভাবে শাসানো হচ্ছে। লকডাউন চলাকালে কিস্তি বন্ধ না করলে আমা’দেরকে না খেয়ে মর’তে হবে।

উপজে’লার পুরাতন বাস্তপুর গ্রামের ইজিবাইকচালক আবু হাসান পিন্টু বলেন, সে সম্প্রতি ইজিবাইক কিনেছে এ সময় তিনি আশা এনজিও থেকে তার স্ত্রীর নামে ৪০ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছিল এতে স’প্ত াহে তার ১১ শ টাকা কিস্তি দিতে হয়। গাড়ি চালিয়ে যে আয় হয় তা দিয়ে সংসার চালাই আর প্রতিদিন কিছু কিছু জমিয়ে স’প্ত াহিক কিস্তি দেই।

লকডাউনে এক স’প্ত াহ বাড়ি বসে আছি, কোনো আয়-রোজগার নেই। ধারদেনা করে সংসার চলছে, কিস্তি কিভাবে দেব ভেবে পাচ্ছি না। লকডাউনের সময় কিস্তি বন্ধ না করলে আমা’দের না খেয়ে মর’তে হবে।

দামুড়হুদা উপজে’লা নির্বাহী কর্মক’র্তা দিলারা রহমান বলেন, এনজিও কিস্তি আ’দায়ের বি’ষয় এবার আমর’া কোনো নির্দেশনা পাইনি। তারপরেও মান’বিক কারণে জবরদ’স্তি করে আ’দায় না করা সমীচিন। যারা দিতে সমর’্থ তাদের ক্ষেত্রেও কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *