Logo
Notice :
Welcome To Our Website...
News Headline :
পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির ২৪ বছর পূর্তি উপলক্ষে বরিশাল ১০নং ওয়ার্ড আ’লীগের আনন্দ র‌্যালি বরিশালে চাকরি প্রার্থীদের অর্ধকোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা আরএম গ্রুপ কুয়াকাটা সৈকতে রাতের আকাশে ফানুসের মেলা কাউন্সিলর হত্যা মামলার প্রধান আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত পটুয়াখালীতে ১৪ মণ জাটকা জব্দ, তিন ব্যবসায়ীকে জরিমানা গভীর রাতে সাজেকে ৪ রিসোর্ট পুড়ে ছাই, সাড়ে ৩ কোটি টাকার ক্ষতি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে রেকর্ড সংখ্যক ভর্তির আবেদন বরিশালে পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২যুগ পূর্তি উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পূস্পার্ঘ অপর্ণ যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সদাপ্রস্তুত : প্রধানমন্ত্রী এবার বৃদ্ধাকে ধাক্কা দিলো সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ি
কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যাকাণ্ড : এজহারভুক্ত এক আসামি গ্রেপ্তার

কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যাকাণ্ড : এজহারভুক্ত এক আসামি গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক // কুমিল্লা সিটির কাউন্সিলর সৈয়দ মো. সোহেলসহ দুইজনকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় সুমন মিয়া (৩২) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ বুধবার সকালে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছেন কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ারুল আজিম।ওসি আনোয়ারুল আজীম বলেন, কুমিল্লা শহরের সুজানগর এলাকার কানু মিয়ার ছেলে সুমন এজাহারে উল্লিখিত ৪ নম্বর আসামি। সকালে কুচাইতলীতে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এলাকায় ঘোরাফেরা করছিলেন সুমন। সেখান থেকে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। তবে হত্যাকাণ্ডে সুমনের সংশ্লিষ্টতা সম্পর্কে বিস্তারিত জানায়নি পুলিশ।

এর আগে,গতকাল মঙ্গলবার রাতে হত্যাকাণ্ডের এ ঘটনায় কাউন্সিলর সোহেলের ছোট ভাই সৈয়দ মো. রুমন ‘চিহ্নিত এক মাদক ব্যবসায়ীসহ’ ২১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলার এজহারে ১১ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। তাছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও ১০ জনকে আসামি করা হয় সেখানে। মামলার এজাহারে কী আছে, সে বিষয়ে বিস্তারিত জানায়নি পুলিশ।

তবে বাদী সৈয়দ মো. রুমন গণমাধ্যমকে বলেন, মাদকবিরোধী অবস্থান নেওয়ায় এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীরা পরিকল্পিতভাবে আমার ভাইকে হত্যা করেছে। এজাহারে তাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

এ সময় রুমন দাবি করেন, গুলিবিদ্ধ হরিপদ সাহাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি শাহ আলমকে চিনতে পারার কথা বলে গেছেন।

নাম উল্লেখ করা বাকি আসামিরা হলেন- স্থানীয় রফিক মিয়ার ছেলে মো. সাব্বির হোসেন (২৮), কানু মিয়ার ছেলে সুমন (৩২), নূর আলীর ছেলে জিসান মিয়া, কানাই মিয়ার ছেলে রনি (৩২), নবগ্রাম এলাকার সোহেল ওরফে জেল সোহেল (২৮), সায়মন (৩০), সংরাইস এলাকার সাজন (৩২), মাসুম (৩৫) তেলিকোনা এলাকার আশিকুর রহমান রকি (৩২) ও সুজানগর বৌবাজার এলাকার আলম (৩৫)।

এজাহারে যে ১১ জনের নাম এসেছে, তাদের প্রথমেই আছেন কুমিল্লা শহরের সুজানগর এলাকার জানু মিয়ার ছেলে শাহ আলম (২৮), যার বিরুদ্ধে মাদকের কারবারসহ বিভিন্ন অভিযোগে মামলা রয়েছে থানায়।

এ প্রসঙ্গে জেলার পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ বলেন, ঘটনাটি সুচারুভাবে তদন্ত করছে পুলিশের একাধিক দল। বিভিন্ন আলামত জব্দ করার পাশাপাশি জিজ্ঞাসাবাদ ও তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে দ্রুত তদন্ত কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। দ্রুত আসামি শনাক্ত করে গ্রেপ্তার করা হবে।

অন্যদিকে, র‌্যাবের ক্রাইম প্রিভেনশন ইউনিটও এ বিষয়ে তদন্ত করছে জানিয়ে র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক মোহাম্মদ সাকিব হোসেন বলেন, হামলাকারীদের দ্রুতই গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে তারা আশা করছেন।

উল্লেখ্য, গত সোমবার বিকালে শহরের পাথুরিয়াপাড়ায় ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সৈয়দ মো. সোহেলের সিমেন্টের দোকান থ্রি স্টার এন্টারপ্রাইজে হামলা চালায় একদল মুখোশধারী। সেখানে থাকা সোহেল এবং তার সহযোগী ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের সভাপতি হরিপদ সাহাকে তারা গুলি করে হত্যা করে। খুনিদের এলোপাতাড়ি গুলিতে আহত হন আরও চারজন। তাদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য ও ১৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সোহেল ২০১২ ও ২০১৭ সালে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। দ্বিতীয় মেয়াদে তিনি প্যানেল মেয়র ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *